Hematology Expert Meeting

28 June, 2019

Hematology Expert Meeting _2.jpg.JPG

বাংলাদেশে রক্তরোগ চিকিৎসার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে রোশ বাংলাদেশ এর উদ্যোগে হেমাটোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দের উপস্থিতিতে “Hematology Expert Meeting” শীর্ষক সভা ২৮ জুন ২০১৯ তারিখে বিকাল ৬ টায় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় Follicular Lymphoma (FL), Diffuse Large B-cell Lymphoma (DLBCL) এবং Hemophilia A সম্পর্কিত নতুন তথ্য ও এর প্রতিকার সম্পর্কে এবং বাংলাদেশে এই চিকিৎসা সহজলভ্য করার বিষয়ে বিশেষজ্ঞগণ আলোচনা করেন। সভায় উপস্থিত ছিলেন হেমাটোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর কার্যকরী কমিটির সদস্য সহ বাংলাদেশের রক্তরোগে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ।

বৈজ্ঞানিক আলোচনা সভা তিনটি সেশন এ ভাগ হয়ে অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম সেশন এর আলোচ্য বিষয় ছিল “Follicular Lymphoma (FL) এর বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ চিকিৎসা ব্যবস্থা”। উক্ত বিষয়ে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ডাঃ এ জে এম সালেহ, কন্সাল্ট্যান্ট এবং কোঅরডিনেটর, অ্যাডাল্ট হেমাটোলজি/এইচএসছিটি, এপোলো হসপিটাল বাংলাদেশ। এই সেশন এর প্যানেল মেম্বার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ডাঃ আলমগীর কবির, বিভাগীয় প্রধান, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল, প্রফেসর ডাঃ এম এ আজিজ, চেয়ারপার্সন, হেমাটোলজি বিভাগ, বিএসএমএমউ, কর্নেল ডাঃ মোহাম্মাদ মোসলেহ উদ্দীন। উপস্থিত চিকিৎসকগণ ফলিকুলার লিম্ফোমা এর বর্তমান চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং রোশ কর্তৃক উদ্ভাবিত, বাংলাদেশের ঔষধ প্রসাশন অধিদপ্তর এর অনুমতিপ্রাপ্ত “Obinutuzumab” এর ব্যবহারে Follicular Lymphoma চিকিৎসা ব্যবস্থার নতুন দিক সম্পর্কে অবগত হন। এই মেডিসিন টির অনুমতি প্রাক্কালে যে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল টি করা হয়েছিল ও তার যে ফলাফল এখানে আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল। মেডিসিন টির রোগীর শরীরে কার্যকারিতা ও সম্ভাব্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে আলোচনা করা হয়।

সূচনা বক্তব্যে হেমাটোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর সাধারন সম্পাদক, প্রফেসর ডাঃ এম এ আজিজ, চেয়ারপার্সন, হেমাটোলজি বিভাগ, বিএসএমএমউ বলেন “রক্তরোগ বিষয়ে এধরনের আয়োজন নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের রোগীদের উপকৃত করবে, গবেষণার সর্বশেষ ফলাফল, নতুন উদ্ভাবন এবং বিভিন্ন বেস্ট প্র্যাক্টিস দেশের বিশেষজ্ঞদের মাঝে পরিচিতকরণের মাধ্যমে আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।“ মেজর জেনারেল সুসানে গীতি, আর্মড ফোরসেস ইন্সটিটিউশন অব প্যাথলজি বলেন ‘রক্তরোগ এ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে, আমাদের সক্ষমতাও সমানভাবে বাড়াতে হবে এবং রোগ নির্ণয়ের আধুনিক যন্ত্রের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে।‘ অধ্যাপক ডাঃ এম এ খান, সাবেক হেড অব দা ডিপার্টমেন্ট, হেমাটোলজি বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল বলেন ‘রক্ত ক্যান্সার চিকিৎসায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের Bone Marrow Transplant (BMT) ইউনিট থেকে আমরা রোগীদের সেবা দিচ্ছি তবে এক্ষেত্রে বরাদ্দ বৃদ্ধি এবং সক্ষমতা বৃদ্ধি জরুরি’।

পরবর্তী সেশন এর আলোচ্য বিষয় ছিল “Diffuse Large B-cell Lymphoma (DLBCL)” এর চিকিৎসাসেবা সংক্রান্ত প্রয়োজনীয়তা ও তার ভবিষ্যৎ চিকিৎসা সমাধান। এই সেশনের স্পীকার ছিলেন প্রফেসর ডাঃ মোঃ মাহবুবুর রহমান, বিভাগীয় প্রধান, হেমাটোলজি বিভাগ, ন্যাশনাল ইন্সিটিটিউট অব ক্যান্সার রিসার্চ এন্ড হসপিটাল (NICRH)। এই সেশন এর প্যানেল মেম্বার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ডাঃ এ বি এম ইউনুস, সাবেক চেয়ারপার্সন হেমাটোলজি বিভাগ, বিএসএমএমউ, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডাঃ ফারুক আহমেদ, স্কয়ার হসপিটাল, এবং প্রফেসর ডাঃ এম এ খান, সাবেক হেড অব দা ডিপার্টমেন্ট, হেমাটোলজি বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল।

তৃতীয় এবং শেষ সেশনের আলোচনার বিষয় ছিল Hemophilia A এর চিকিৎসা ব্যবস্থার চ্যলেঞ্জ। এই সেশনের স্পীকার ছিলেন ডাঃ অখিল রঞ্জন বিশ্বাস, এসোসিয়েট প্রফেসর, হেমাটোলজি বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল। এই সেশন এর প্যানেল মেম্বার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মেজর জেনারেল সুসানে গীতি, আর্মড ফোরসেস ইন্সটিটিউশন অব প্যাথলজি, প্রফেসর ডাঃ সালমা আফরোজ, বারডেম হসপিটাল, ডাঃ আমিন লুৎফুল কবির, এসোসিয়েট প্রফেসর, হেমাটোলজি বিভাগ, বিএসএমএমউ।

অনুষ্ঠানটির সূচনা বক্তব্য রাখেন হেমাটোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর সাধারন সম্পাদক, প্রফেসর ডাঃ এম এ আজিজ, চেয়ারপার্সন, হেমাটোলজি বিভাগ, বিএসএমএমউ এবং সমাপনি ঘোষণা করেন হেমাটোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর সভাপতি, প্রফেসর ডাঃ মোঃ মাহবুবুর রহমান, হেড অব দা ডিপার্টমেন্ট, হেমাটোলজি বিভাগ, ন্যাশনাল ইন্সিটিটিউট অব ক্যান্সার রিসার্চ এন্ড হসপিটাল। প্রফেসর ডাঃ মোঃ মাহবুবুর রহমান তার বক্তব্যে রোশ বাংলাদেশ এর এই ধরনের বৈজ্ঞানিক আলোচনা সভা আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং সকল রক্তরোগে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদেরকে নতুন চিকিৎসা ব্যবস্থা সম্পর্কে অবগত থাকার এবং সেই মোতাবেক রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করার আহ্বান জানান। তিনি আরো বলেন “রোগীদের কল্যাণে চিকিৎসাসেবার সংশ্লিষ্ট সকলকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। যথাযথ সমন্বয় এবং রোগীর চাহিদাকে প্রাধান্য দেয়ার মাধ্যমেই কাংখিত ফলাফল অর্জন সম্ভব এবং এক্ষেত্রে বেসরকারি খাতকেও উদ্যোগী হতে হবে। রোশ এর এধরনের কার্যক্রমসমূহকে নিয়মিত আকারে চালু রাখতে হবে।“

রোশ বাংলাদেশ এর পক্ষ থেকে এই ধরনের বৈজ্ঞানিক আলোচনা সভা চলমান রাখার ও রোগী কল্যাণ সংশ্লিষ্ট উদ্যোগের বিষয়ে আশ্বাস দেয়া হয়। রাত দশটায় অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘটে।